পুজো অনুদান নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে ফের মামলা দুর্গাপুরের সিটু নেতার

দুর্গাপুজো কমিটিগুলিকে রাজ্য সরকারের ৫০ হাজার টাকা অনুদান দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ৯ অক্টোবর শুক্রবার মামলা দায়ের হল কলকাতা হাইকোর্টে।

নিজে নাস্তিক। মেয়েদের শাঁখা সিঁদুর পড়া থেকে গণৎকারের ভাগ্য গণনা- যে কোনও বিষয়ে প্রতিযুক্তি দিয়ে বুঝিয়ে দিতে সিদ্ধহস্ত। পদবি ব্যবহার করাতেও তিনি বিশ্বাসী নন। নিজের নামের পরে সেটি বাদ দিতে পারেননি। তাই যুদ্ধ শুরু করেছেন নিজের ঘর থেকে। নিজের ছেলের নাম শুধু মানবপুত্র। পদবি না থাকায় মানবপুত্রকে পড়াশোনা করার সময় নানান সমস্যায় পড়তে হয়েছে। এমন কি বিদেশেও।

আসলে ট্র্যাকের বাইরে গেলে বোধহয় হোঁচট খেতেই হয়। মানবপুত্রের অভিভাবককেও সমস্যায় পড়তে হয়েছে। তবে দমে যাননি তাঁরা।

যুক্তিবাদী এই মানুষটি হলেন সৌরভ দত্ত। দুর্গাপুর স্টিল প্ল্যান্টের কর্মী। সিটু নেতাও বটে। নাস্তিক সৌরভবাবুর আরেকটি যুদ্ধ এখন ভীষণ প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। তা হল, রাজ্য সরকার ১০ বছরের বেশি পুরনো দুর্গাপুজো কমিটিগুলিকে ৫০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে শুক্রবার হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন সৌরভবাবু। তিনি নিজে এখন করোনা আক্রান্ত। ভর্তি বেসরকারি হাসপাতালে। হাসপাতালের বেড থেকেই যুদ্ধ জারি রেখেছেন তিনি। ১৪ অক্টোবর মামলার শুনানি হবে।

যুদ্ধটা শুরু হয়েছিল ২০১৮ সালে। সেবারই প্রথম রাজ্য সরকার দুর্গাপুজো কমিটিগুলোকে ১০ হাজার টাকা অনুদান দেয়। সৌরভবাবু বলেন, “সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষতার মূলে কুঠারাঘাতের বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করি। রাজ্যসরকার হাইকোর্টে বার কতক হোঁচট খায়, আমরা স্টে অর্ডার পাই একাধিকবার, রাজ্য তাদের বয়ান বদল করতে থাকে।” তাঁর হয়ে মামলা লড়ছেন আইনজীবি বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য, সামিম আহমেদ প্রমুখ। তিনি জানান, একসময় ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গিয়ে রাজ্য সরকার বলে যে ট্রাফিক পুলিশ “সেফ ড্রাইভ- সেভ লাইফ” প্রজেক্টে এই টাকা দিচ্ছে। তিনি বলেন, “অবশেষে, আচমকা তড়িঘড়ি স্টে অর্ডার ওঠে আর আমরা তৎক্ষনাৎ সুপ্রিম কোর্টে ছুটে যাওয়ার মাঝেই উইক এন্ডের সুযোগে সারা রাজ্যে পুলিশ দৌড়োয় পুজো কমিটিকে চেক দিতে!”

সুপ্রিম কোর্টে মামলা হয়। রাজ্যকে হলফনামা জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। সৌরভবাবু বলেন, “রাজ্যের সেই হলফনামা জমা পড়েছিলো সময়ের অনেক পরে, ততদিনে রাজ্য ও দেশে আরও অনেক জটিল পরিস্থিতি এসে গেছে, সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি সহ অনেক বিচারপতি অবসর নিয়েছেন। ঔদ্ধত্যের সঙ্গে রাজ্য সরকার ২০১৯ সালে দুর্গাপুজো কমিটিগুলোকে ২৫ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করে।”

তিনি জানান, ঘুঁটি ঠিক মত সাজানোর পরিকল্পনা চলছিল, তখনই করোনা অতিমারি শুরু হয়ে যায়। ফের বাঙালির মেগা উৎসব দুর্গাপুজো জাগ্রত দ্বারে। সৌরভবাবু বলেন, “ধর্মনিরপেক্ষতাকে চ্যালেঞ্জ করে রাজ্য পুরোহিত ভাতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দুর্গাপুজো কমিটিকে ৫০ হাজার টাকা করে দিচ্ছে। তাই মামলা করেছি।” তিনি আরও জানান, “রাজ্য সরকার ইমাম ভাতা দিতে শুরু করেছিলো, কিন্তু সামিম আহমেদ, বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যদের লড়াইতেই তা বন্ধ হয়। এখন সেটা ওয়াকফ বোর্ড দেয়।

aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: