মারা গেলেন সোনামুখী হাসপাতালের চিকিৎসক সন্দীপ কুমার দে

রবিবার বিকালে বাঁকুড়ার সোনামুখী হাসপাতালের এক দন্ত চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে দুর্গাপুরের বিবেকানন্দ হাসপাতালে। তাঁর উর্ধতন কর্তৃপক্ষ কেউ একবারও খোঁজ নেননি বলে বিজেপির অভিযোগ। এমনকি সরকারি স্বাস্থ্য বীমা থাকা সত্বেও নগদ টাকা জমা দিতে হয়েছে হাসপাতালে।

মৃত চিকিৎসকের নাম সন্দীপ কুমার দে (৫১)। বাড়ি গোপীনাথপুরের আমবাগান এলাকায়। মার্চ মাস থেকে টানা বাঁকুড়ায় পরিষেবা দিয়ে এসেছেন। মাথা ব্যাথা, পাতলা পায়খানা, জ্বরে আক্রান্ত হয়ে তিনি ছুটি নিতে বাধ্য হন। ভর্তি হন বিবেকানন্দ হাসপাতালে।

পরিবারের অভিযোগ, সরকারি স্বাস্থ্যবীমা থাকা সত্বেও হাসপাতালে প্রথমেই ৫০ হাজার টাকা জমা দিতে বলা হয়। তাঁরা ৩০ হাজার টাকা জমা দেন। চিকিৎসা শুরু হয়। কিন্তু সন্দীপবাবুর উর্ধতন কর্তৃপক্ষ একবারও তিনি কেমন আছেন বা তাঁর চিকিৎসা ঠিকমতো হচ্ছে কি না সে ব্যাপারে খোঁজ নেননি বলে দাবি করেছেন বিজেপির জেলা এক্সিকিউটিভ সদস্য অমিতাভ বন্দ্যোপাধ্যায়।

অমিতাভবাবু বলেন, একজন চিকিৎসকের এভাবে মৃত্যু মেনে নেওয়া যায় না। উনি কোভিড পরিস্থিতিতে জীবন বাজি রেখে পরিষেবা দিয়ে এসেছেন। তার পরে তাঁর এই পরিণতি। রাজ্য সরকারের তরফে কোভিড যোদ্ধাদের নিয়ে কত কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু কার্যক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, বিপদের সময়ে তাঁদের পাশে কেউ নেই। সন্দীপবাবু বিজেপির চিকিৎসক সেলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন।

অমিতাভবাবু আরও জানান, মাস দু-য়েক আগে কোভিড যোদ্ধাদের কিট প্রদান করা হয়। তখন সন্দীপবাবুর হাতেও কিট তুলে দেওয়া হয়েছিল। প্রাক্তন সেনাবাহিনীর কর্মী সন্দীপবাবু সেই কিট নিয়ে নতুন উদ্য়োমে ঝাঁপিয়ে পড়েন কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে।

aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: