করোনায় কমেছে দূষণ

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটিও সাবস্ক্রাইব করে রাখুন বিভিন্ন আপডেট পাওয়ার জন্য।

চিনে অনেকটাই কমেছে দূষণের মাত্রা। এমনটাই জানিয়েছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। কিভাবে? নাসার দাবি, করোনা ভাইরাসের দাপটে শিল্পোৎপাদন কমে যাওয়ায় এবং রাস্তায় যানবাহন প্রায় না বেরোনোয় হ্রাস পেয়েছে বাতাসে নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ। ফলে কিছুটা হলেও আগের থেকে শুদ্ধ হয়েছে বাতাস।

দেখুন ভিডিও- 

চিনে মারণ ভাইরাস করোনার প্রকোপে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৩ হাজার মানুষের। আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৮০ হাজার। আতঙ্ক ছড়িয়েছে দেশ জুড়ে। পরিস্থিতি সামাল দিতে রীতিমতো নাজেহাল দশা চিনের। রোগ যাতে না ছড়াতে পারে তাই হাজার হাজার মানুষ গৃহবন্দী। রোগের উৎসস্থল হুবেই প্রদেশের রাজধানী ইউহান সহ বেশ কয়েকটি শহর কার্যত ‘লকডাউন’ করে রেখেছে প্রশাসন। বন্ধ হয়ে গিয়েছে স্কুল, কলেজ, অফিস, বাজার, শিল্প-কারখানা। ফলে যে রাস্তায় যানজট ছিল নিত্যসঙ্গী সেখানে এখন গাড়ি খুঁজে পাওয়া দায়। শিল্প-কারখানায় উৎপাদন ঠেকেছে তলানিতে। ফলে কারখানা থেকে বর্জ্য দূষিত বাতাসের পরিমাণও কমে গিয়েছে এক ধাক্কায় অনেকখানি। এমনিতে দূষণ রুখতে কত কি না করতে হয় চিনকে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে যখন দিশেহারা দশা সে দেশের মানুষের তখন কিছুটা হলেও স্বস্তি এনে দিয়েছে দূষণের এই নিম্নগামী প্রবণতা।

চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে বায়ু দূষণের মাত্রা বছরের বিভিন্ন সময়ে মানুষের শরীরের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ এমন মাত্রায় পৌঁছে যায়। মাত্র কয়েক মিটার দূরের জিনিস দেখতে পাওয়া যায় না। এমনকি ঘরে ভেতরেও কুয়াশাচ্ছন্ন অবস্থা থাকে। বায়ু গুণমান সূচক ৫০ বা তার নিচে থাকলে তা স্বাস্থ্যসম্মত পর্যায়ে থাকে। কিন্তু এটি ৩০১ থেকে ৫০০তে পৌঁছলে তা স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়। এই মাত্রায় ঘরের বাইরে কাজ থেকে বিরত থাকা উচিত। সেখানে বেইজিংয়ে বায়ু দূষণের মাত্রা ৪০০-৮০০ মাইক্রোগ্রামে পৌঁছে যায়। সেই হিসাবে বায়ু গুণমান সূচক ২০০ এমনকি ৪০০ ও ছাড়িয়ে যায়। এই দূষিত বায়ু গ্রহণের কারণে শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত রোগ, ফুসফুসে ক্যান্সার, হৃদরোগের সম্ভাবনা বাড়ায়। এমনকি মৃত্যুও হতে পারে।

নাসার বিজ্ঞানীরা স্যাটেলাইট ছবির মাধ্যমে বর্তমানে চিনের বাতাসের সঙ্গে ২০১৯ সালের প্রথম দু’মাসের তুলনা করেছেন। তাঁরা বলছেন, বাতাসে নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইড কমেছে চিনে। প্রথম নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইড কমার ইঙ্গিত মেলে ইউহান থেকে। পরে ধীরে ধীরে গোটা চিনেই নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ কমতে থাকে। একটি নির্দিষ্ট ঘটনার জেরে এতটা জায়গা জুড়ে দূষণ কমতে আগে কখনও দেখা যায়নি বলে মনে করেন নাসার বিজ্ঞানীরা।

আরও পড়ুন-

https://durgapur24x7.com/sales-of-garlic-rises-due-to-fears-over-covid-19-health-benefits-of-garlic/
https://durgapur24x7.com/correct-way-to-disinfect-your-home-from-corona-virus/
https://durgapur24x7.com/book-predicted-about-coronavirus-many-years-ago-make-people-stunned-discussion-in-social-media/
https://durgapur24x7.com/varanasi-biswanath-temple-puts-face-masks-on-idols-corona-virus-covid-19/

You May Also Like

More From Author

+ There are no comments

Add yours