লঙ্কার দামের ঝালে লঙ্কার ঝাল ভুলতে বসেছে বাঙালি

করোনা আবহ। উৎসবের মরসুম আসছে। তবু উন্মাদনা নেই বাঙালির মনে। হাতে গুনে কদিন পরেই মহালয়া। পাঁজি মতে তার একমাস পর পুজো। তার আগে বাজারে সবজির দামে যেন আগুন লেগেছে।

দুর্গাপুরের বাজার ঘুরে জানা গিয়েছে, এক মাস আগে জ্যোতি আলু ছিল ২০ থেকে ২২ টাকার মধ্যে। মাস পেরোতে সেটাই এখন ৩২ টাকায় বিকোচ্ছে। মাঝে ৩৪ টাকাও হয়ে গিয়েছিল। আরও বাড়তে পারে, জানিয়েছেন বহু ব্যবসায়ী। পটল গত দু-মাসে গড়ে কেজি প্রতি ২০ টাকা দাম বেড়েছে। এখন পটল বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা দরে। আগে ছিল ৩০ টাকা।

লঙ্কার দামের ঝালে লঙ্কার ঝাল ভুলতে বসেছে বাঙালি। ১৫০ টাকা কেজিতেও বিকোচ্ছে কাঁচালঙ্কা। এছাড়া শশা, লাউ, উচ্ছে, টমেটো সহ নিত্য ব্যবহারের সমস্ত সবজির দাম কেজি প্রতি লকডাউনের সময় থেকে গড়ে ২০ টাকা হারে বেড়েছে। ডিম প্রতি ডজনে ৬০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৭০ টাকা।

একদিকে কাজ হারিয়ে অন্য রাজ্য থেকে বহু মানুষ এই রাজ্যে ফিরেছে। এখানেও অনেকে বেসরকারি সংস্থায় কাজ হারিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে সবজির এমন চড়া দাম। স্বাভাবিক ভাবেই বিপুল সংখ্যক সাধারণ মানুষের কপালে ভাঁজ পড়েছে।

বেনাচিতির ঘোষ মার্কেট, মামড়া বাজার সহ বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, লকডাউনের ফলে প্রথম দিকে জোগান কম এসেছে। তার ফলে আলু, পেঁয়াজ সহ সব সবজি পাতির দাম বাড়ে। পাইকারী বাজারেই বেশী দাম সামগ্রী কিনতে হয় খুচরো ব্যবসায়ীদের। পরের দিকে আবার বৃষ্টির ফলে সবজি নষ্ট হয়েছে কিছু। সিটি সেন্টারের ডেইলি মার্কেটের সবজি বিক্রেতা লালমোহন দত্ত বলেন, অন্যবার এই সময় আলুর দাম অনেক কম থাকে। কিন্তু এখন পাইকারি বাজারেই কিনতে হচ্ছে চড়া দামে। তাই কেজিতে দাম বেড়েছে। দুর্গাপুজো পর্যন্ত এই পরিস্থিতি চলবে বলে মনে করছেন খুচরো বিক্রেতারা।

শুক্রবার বেনাচিতি বাজারে খাদ্য দফতর ও পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে অভিযান চালান দুর্গাপুরের মহকুমাশাসক অনির্বাণ কোলে। তিনি বলেন, দাম বেশি নিলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। এদিন ওই বাজারে আলু-পেঁয়াজের গুদাম সহ কয়েকটি দোকান সিল করে দেয় প্রশাসন।

pix- wikimedia commons

aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: