How to grow Grape vine in small container

How to grow Grape vine in small container. টবে আঙুর কিভাবে চাষ করবেন

How to grow Grape vine in small container. টবে আঙুর চাষ করে ভালো ফলন পাওয়া যায়। আঙুর সমতল এলাকার ফসল নয়। তাই সমতল এলাকায় চাষ করতে চাইলে খুব যত্ন করতে হবে এই গাছটিকে। আর একটু যত্নেই প্রচুর ফল পাওয়া যায়।

গাছ সংগ্রহ

নার্সারী থেকে কাটিং থেকে তৈরী গাছ আনতে হবে। তাহলে এক বছরের মধ্যে ফল পাওয়া যায়। বীজ থেকেও আঙুর গাছ হয়। সেই ফল আসতে তিন-চার বছর লেগে যায়।

মাটি কিভাবে তৈরি করবেন

এই গাছে পর্যাপ্ত পরিমান জল দরকার। কিন্তু মাটি বেশিক্ষণ ভেজা থাকলে বা মাটি কাদা কাদা হয়ে গেলে গোড়া নষ্ট হয়ে যায়। তাই মাটি তৈরী করতে হবে সচেতন ভাবে। হাল্কা মাটি তৈরী করতে হবে। ৪ ভাগ বাগানের মাটি, ২ ভাগ বালি, ২ ভাগ কোকোপিট আর ২ ভাগ ভার্মি কম্পোস্ট বা গোরব সার, এক ভাগ নিম খোল। এগুলিকে ভালো ভাবে মিশিয়ে নিতে হবে।

টব তৈরী

এই গাছ যখন আপনি লাগাচ্ছেন তখন ফল পাওয়ার জন্যই লাগাচ্ছেন। তাই একটু বড় টব ব্যবহার করাই ভালো। মানে ২৫ ইঞ্চির টব। গোলাকার বা চৌকাকার টবও ব্যবহার করতে পারেন। টবে গাছ প্রতিস্থাপনের আগে গাছের গোড়া সুস্থ রাখতে টবে মাটি কিভাবে ভরতে হবে তা জেনে নেওয়া ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। টবে ড্রেনেজের ব্যবস্থা করতে হবে। মানে জল নিকাশি ব্যবস্থা। প্রত্যেক টবের নীচে ছিদ্র থাকে। এই ছিদ্র একটি ঢেউ খেলানো ছোট তিন চারটি খোলাম কুচি রাখতে হবে। তার ওপরে ছোটো স্টোন চিপস্ বা ছোট নুড়ি দিতে হবে। এরপর বালি দিতে হবে এমন ভাবে যাতে নুড়ি পাথরগুলো দেখা না যায়। এরপর মাটি দিতে হবে। বালি অবশ্যই দিতে হবে। নুড়ির ওপর মাটি দিলে পরবর্তীকালে নুড়ির মধ্যে মাটি আটকে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে জল মাটিতে জমে যাবে। এবং,মাটিতে ফাঙ্গাস জন্মে গাছের ক্ষতি হবে।Grape vine plant in small container

আঙুর গাছ লতানো গাছ। গাছের ডাল কাটিং ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। তাই মাচা তৈরী করতে হবে। টবের চার পাশে চারটি দন্ড দিয়ে তার উপরে চার দিয়ে জালি বানিয়ে নিতে হবে ছোট করে। চারটি দন্ডকে ঘিরে জাল বানালেই সবচেয়ে ভালো। এবার ঠিক মাঝখানে গাছটি লাগাতে হবে। গাছ লাগানোর পরে গাছে জল দিতে হবে।

গাছের পরিচর্যা ও খাবার

আঙুর গাছ মার্চ মাস থেকে আগষ্ট মাস পর্যন্ত যে কোনও সময় লাগানো যেতে পারে। তবে জানুয়ারি মাস থেকে পরিচর্যা শুরু হয়। ফেব্রুয়ারি মাসে গাছে ফল আসতে শুরু করে। জানুয়ারি মাসে গাছের ডাল বা শাখা কাটতে হবে। তিন চারটে শাখা রাখতে হবে। অনেক শাখা বের হলেও সেগুলি কেটে ফেলতে হবে। বেশি শাখা বের হলে ভালো আঙুর পাওয়া যাবে না। শাখা কাটিং এর পর ফেব্রুয়ারি মাসে নতুন শাখার সঙ্গেই ফুল আসবে।

তখন এক চামচ অনুখাদ্য দিতে হবে। এছাড়াও এক চামচ ভার্মি কম্পোস্ট, এক চামচ হাড়গুঁড়ো, এক চামচ শিংকুচি, এক চামচ পটাশ, এক চামচ নিম খোল দিতে হবে। ১৫ দিন অন্তর দিতে হবে। জুলাই মাস পর্যন্ত। যতদিন না ফল পাকছে। ফল এলে অবশ্যই দেবেন মাছ বা মাংস ধোয়া জল। এটা সপ্তাহে একদিন করে দেবেন। এতে আঙুরের ফলন যেমন ভালো হয় তেমনই ফল মিষ্টিও হয়। এই সারের মিশ্রণ আপনি বছরের অন্য সময়ে মাসে একবার করে দেবেন। গাছের স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য। এক বছর বা তার অধিক গাছের বয়স হলে পুরানো ডালগুলিকে জালির ওপর গোলাকার করে ঘুরিয়ে রাখবেন। তাতে নতুন ডাল গজাতে সুবিধা হয়। গাছ খুব কম জায়গায় ভালো থাকে।

কীটনাশক

আঙুর গাছের পাতা পোকামাকড়ের খুব পছন্দের! তাই পোকার আক্রমণও খুব বেশি হয়। নিয়ম করে ১৫ দিন অন্তর কীটনাশক স্প্রে করবেন। নিম তেল জলের সঙ্গে মিশিয়ে স্প্রে করতে পারেন। তাতে গাছ ভালো থাকবে। আশা করি এই প্রতিবেদনে মোটামুটি একটা ধারণা পেলেন, কিভাবে বাড়িতেই আঙুর চাষ করবেন। How to grow Grape vine in small container.

আরও পড়ুন- সত্যজিৎ রায়ের ‘গুপী গাইন বাঘা বাইন’ এর বিখ্যাত খেরোর খাতা এখন আপনার হাতের মুঠোয়

আরও পড়ুন- টবে পেয়ারা চাষ করার সহজ পদ্ধতি

By aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: