অবাক হওয়ার কিছু নেই। সত্যিই প্রতি বছর ১৮ সেপ্টেম্বর বিশ্ব বাঁশ দিবস পালন করা হয়।

হস্তশিল্প মেলায় গিয়ে আমাদের অনেকেই বাঁশের তৈরি হস্তশিল্প, ফার্নিচার প্রভৃতি কিনে থাকি। কিভাবে বাঁশ থেকে সেগুলি তৈরি হয় তা নিয়ে আলোচনা করি। শুধু কি তাই! কিভাবে বাঁশ দিয়ে হাসপাতালের আসবাব তৈরি করা যায় তা উদ্ভাবন করেছেন গৌহাটির ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (আইআইটি) গবেষক ডঃ রবি মোকাশি পুনেকার। বিশেষ করে কোভিড মহামারীর সময় বাঁশের তৈরি আইসোলেশন বেড, কোয়ারেন্টাইন বেড, হুইলচেয়ার সহ অন্যান্য হাসপাতাল ফার্নিচার তৈরি করা হচ্ছে। অত্যন্ত কম খরচ এবং পোর্টেবল বলে সেগুলি ইতিমধ্যেই বেশ সাড়া ফেলেছে।

আমাদের দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলির অর্থনীতিতে বাঁশ বড় ভূমিকা নিয়ে থাকে। প্রায় ১৪০ রকম বাঁশের প্রজাতি রয়েছে সেখানে। শুক্রবার দিনটি উপলক্ষে উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় উন্নয়ন মন্ত্রকের অধীন কেন অ্যান্ড ব্যাম্বো টেকনোলজি সেন্টার এবং ভারতীয় শিল্প মহাসংঘ (সিআইআই) দুটি ওয়েবিনারের আয়োজন করে। সেখানে অংশ নিয়ে কেন্দ্রীয় উত্তর-পূর্বাঞ্চল উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী ডঃ জিতেন্দ্র সিং বলেন, কোভিড পরবর্তী সময়ে বাঁশ শিল্প উত্তর-পূর্ব ভারতের অর্থনীতির উন্নয়নে বড় ভূমিকা নেবে।

মন্ত্রী জানান, বাঁশ শিল্পের প্রসারের জন্য শতাব্দী প্রাচীন ভারতীয় অরণ্য আইন সংশোধন করে বাঁশকে বনজ সামগ্রীর তকমা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এর ফলে, বাঁশ শিল্পকে কাজে লাগিয়ে জীবন-জীবিকার প্রসার ঘটবে। এছাড়া কাঁচা বাঁশ নির্মিত সামগ্রী আমদানির ক্ষেত্রে ২৫ শতাংশ হারে আমদানি শুল্ক বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এর ফলে দেশীয় বাঁশ শিল্প, বিশেষ করে ফার্নিচার, হস্তশিল্প, ধূপকাঠি তৈরি প্রভৃতি ক্ষেত্রে কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়বে।

By aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: