আইসিটি কম্পিউটার শিক্ষকদের আশার আলো নিভে গেল দপ করে

“…আর এজেন্সি নয়। সরকারই চুক্তিভিত্তিক তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী নিয়োগ করবে।”

মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণার পরে রাজ্যের হাজার হাজার আইসিটি কম্পিউটার শিক্ষকেরা মনে করেছিলেন, তাঁরাও বুঝি বা এর আওতায় আসতে চলেছেন। এতদিন ধরে তাঁরা আন্দোলন করে চলেছেন!

প্রাথমিক বিভ্রান্তি কাটতেই আর বুঝতে বাকি রইল না, কম্পিউটার শিক্ষকেরা আপাতত এই সিদ্ধান্তের বাইরেই রয়ে গেলেন। ফেসবুকে পোস্ট হয়ে গেল,  “ঢাকে পড়ল কাঠি, আইসিটি শিক্ষকদের হাতে বাটি!” মুহুর্তের মধ্যে পোস্টটি ভাইরাল হয়ে যায়।

আসলে চূড়ান্ত অনিশ্চয়তা সঙ্গী করে নামমাত্র বেতনে কাজ করে চলেছেন রাজ্যের হাজার হাজার আইসিটি কম্পিউটার শিক্ষক। দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন করে চলেছেন। তাঁদের প্রধান দাবি, এজেন্সি থেকে মুক্ত করে সরাসরি রাজ্য সরকারের চুক্তিভিত্তিক করা হোক তাঁদের।    

কম্পিউটার শিক্ষকদের সংগঠন WBICTSCWA এর রাজ্য সভাপতি স্বরূপ পান জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার যে অর্থ বরাদ্দ করে এজেন্সি থেকে তাঁদের সেই তুলনায় অনেক কম বেতন দেওয়া হয়। তিনি বলেন, কম্পিউটার শিক্ষকেরা রাজ্য সরকারের প্রত্যেকটি প্রকল্পের কাজ অত্যন্ত দায়িত্বের সঙ্গে সম্পন্ন করে থাকেন। এজেন্সির অধীনে না থেকে সরাসরি সরকারের অধীনে থেকে আমরা এভাবেই স্কুলের কাজ করে যেতে চাই।

রাজ্য সরকারের পুজো অনুদানের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে মামলা করেছেন দুর্গাপুরের শ্রমিক নেতা সৌরভ দত্ত। তিনি বলেন, কম্পিউটার শিক্ষকেরা দীর্ঘদিন ধরে দায়িত্বের সঙ্গে কাজ করে চলেছেন স্কুলে স্কুলে। যখনই সম্ভব হবে তাঁদের স্থায়ীকরণের দিকে নজর দেওয়া উচিত রাজ্য সরকারের। পুজো অনুদান সহ নানা বিষয় নিয়ে হাইকোর্টে ধাক্কা খাচ্ছে রাজ্য সরকার। ভোটের কথা ভেবে এমন সাময়িক সিদ্ধান্ত না নিয়ে বঞ্চিত কম্পিউটার শিক্ষকদের সারা জীবনের কথা ভাবুক সরকার।

মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণায় হঠাৎ করে আশার আলো দেখতে শুরু করেছিলেন কম্পিউটার শিক্ষকেরা। অনেকেই ওয়েবেলে ফোন করে জানতে চান। কিন্তু সময় গড়াতেই সত্যিটা সামনে চলে আসে। হতাশায় ডুবে যান তাঁরা।

aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: