হাথরসের লজ্জা রাখব কোথায়?

হাথরসে যাওয়ার পথে প্রথমে গলাধাক্কা। তারপর পুলিশের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কিতে মাটিতে পড়ে গেলেন রাহুল গান্ধী। কিছুক্ষণের মধ্যেই তাঁকে ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে গ্রেফতার করে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। এদিন তাঁদের কর্মসূচি বাতিল করতে আগে থেকে ১৪৪ ধারা জারি করে রেখেছিল যোগীর সরকার। তা সত্বেও রাহুল-প্রিয়াঙ্কা কর্মসূচি বাতিল করেননি।

উন্নাও এর পর হাসরথ। নারকীয় নারী নির্যাতনে মেতে উঠেছে উত্তরপ্রদেশ। ধর্ষণের পরে নৃশংসভাবে খুন করা হচ্ছে কিশোরী, যুবতীদের। এদিন হাথরসের ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে মাঝ রাস্তা থেকে গ্রেফতার হলেন রাহুল-প্রিয়াঙ্কা। প্রতিবাদ জানানো যাবে না। অনেকেই মনে করছেন, এহেন গ্রেফতারি তো মানবধিকার লঙ্ঘনের সামিল!

হাথরসে বছর উনিশের বাল্মিকী সম্প্রদায়ের এক কিশোরীকে গণধর্ষণের পরে যখন পাওয়া যায় তখন সে মৃতপ্রায়। ধর্ষণের পরে তার উপরে নারকীয় অত্যাচার চালানো হয়। তার হাত, পা, কোমর, মেরুদন্ড ভেঙে দেওয়া হয়। জিভ ক্ষত-বিক্ষত।

এই নারকীয় অত্যাচার কারা করেছে তা পুলিশ জানে। কিন্তু তা নিয়ে বিশেষ হেলদোল নেই তাদের। কেন তার মৃত্যুর সঙ্গেই সঙ্গেই গমক্ষেতে দেহ পুড়িয়ে দেওয়া হয়? সাংবাদিকরা বার বার জানতে চাইলেও পুলিশ জানায়নি, গমক্ষেতে আসলে কি পুড়ছে।

তাহলে সমাজে যা ইচ্ছে তাই হবে? কেউ কিচ্ছুটি জানতে চাইতে পারবে না? উত্তরপ্রদেশেই কেন একের পর এক ঘটনা ঘটছে? পরিকল্পিত ভাবে নারকীয় অত্যাচারের নজির বার বার তুলে ধরে দেশবাসীর মুখ বন্ধ করে দেওয়ার পরিকল্পনা চলছে? জবাব দিতেই হবে।

aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: