লকডাউন অমান্য করায় বাধা দেওয়ায় পাঞ্জাবে পুলিশের হাত কেটে নিল দুষ্কৃতীরা

পাঞ্জাবের নিহংগী শিখদের কাছে সব সময় তলোয়ার রাখার অনুমতি আছে। সেই তলোয়ার দিয়েই পুলিশের এক এএসআইয়ের হাত কেটে দিল কয়েকজন নিহংগী শিখ। রবিবার সকালে ঘটনাটি ঘটে পাতিয়ালায়। এই ঘটনায় নিন্দার ঝড় বয়ে যাচ্ছে দেশজুড়ে। কারণ, ওই এএসআই লকডাউন মানা হচ্ছে কি না তা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। কর্তব্যরত অবস্থাতেই তাঁর উপরে এই আক্রমণের ঘটনা ঘটে।  

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, সকালে সবজি মান্ডিতে একটি গাড়ি নিয়ে ঢুকতে গিয়েছিলেন কয়েকজন শিখ। এএসআই তাঁদের অনুমতি পত্র দেখাতে বলেন। কিন্তু তাঁরা কিছু দেখাতে পারেননি। বচসার মধ্যেই একজন এই সময় সঙ্গের তলোয়ার দিয়ে হাত কেটে দেন এএসআইয়ের। তাঁকে বাঁচাতে গিয়ে জখম হন আরও চারজন পুলিশকর্নী। তাঁদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

করোনা সংক্রমণ থেকে দেশকে রক্ষা করতে দেশের প্রধানমন্ত্রী থেকে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা, একবাক্যে বলে চলেছেন, লকডাউনই সেরা উপায়। সারা দেশ জুড়েই লকডাউন না মানার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। ভাবখানা এমন যেন দেশের সরকার, রাজ্যের সরকার, পুলিশ ও প্রশাসন গায়ের জোরে মানুষকে ঘরবন্দী করে রাখতে চাইছে। কোনও রকম সচেতনতার বালাই নেই বহু মানুষের মধ্যে। যখন খুশি ইচ্ছামতো বেরিয়ে পড়ছেন ঘর থেকে। জরুরি প্রয়োজনে বেরোলে সন্তোষজনক ব্যাখ্যা দিতে হয় পুলিশকে। কিন্তু পুলিশ কাউকে আটকালে পাল্টা ক্ষোভর মুখে পড়তে হচ্ছে। এবার এক পুলিশ কর্মীর হাতই কাটা গেল।

করোনার সংক্রমণ হু হু করে বাড়ছে সারাদেশে। এমন পরিস্থিতিতে ঘরে বন্ধ থাকাই একমাত্র পথ। পুলিশ কর্মীরা দেশজুড়ে প্রাণের ঝুঁকি মাথায় নিয়ে নিরলস কাজ করে চলেছেন। সেখানে পাঞ্জাবের এই ঘটনা তাঁদের মনোবলে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছেন পুলিশের অনেকেই। তবে একই সঙ্গে তাঁদের আর্জি, কেন্দ্রীয় সরকার ও রাজ্য সরকার তাঁদের অনুমতি দিন, যাতে লকডাউন কেউ অমান্য করলেই তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া যায়। তাহলে হয়তো বাইরে বেরোনোর প্রবণতা কমবে। ভাঙবে করোনার চেন।  

aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: