তৃণমূলের সংখ্যালঘু সেলেও দ্বন্দ্ব, ১৮ ব্লকে ৩৬ জন সভাপতি পশ্চিম বর্ধমানে!

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটিও সাবস্ক্রাইব করে রাখুন বিভিন্ন আপডেট পাওয়ার জন্য। 

দুর্গাপুর দর্পণ, দুর্গাপুরঃ বিধানসভা ভোটের নির্ঘন্ট ঘোষণা করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। কিন্তু তৃণমূলের সাংগঠনিক অন্তর্দ্বন্দ্ব থামার কোনও লক্ষ্মণ নেই। পশ্চিম বর্ধমান জেলার প্রতিটি সাংগঠনিক ব্লকে তৃণমূলের সংখ্যালঘু সেলের দু’জন করে সভাপতি! এটিও অন্তর্দ্বন্দ্বের অন্যতম নজির ছাড়া আর কিছুই নয় বলে মনে করছে দলেরই একাংশ।

পশ্চিম বর্ধমানে সাংগঠনিক ব্লকের সংখ্যা ১৮। সংখ্যালঘু সেলের জেলা সভাপতি ও চেয়ারম্যান হলেন সৈয়দ আফরোজ ও গোলাম সরওয়ার। তাঁরা দু’জনেই নিজের মতো করে সব ব্লকে আলাদা আলাদা সভাপতির নাম ঘোষণা করে দিয়েছেন। অর্থাৎ ১৮ টি ব্লকে সভাপতির সংখ্যা ৩৬ জন!

এই পরিস্থিতিতে অর্ন্তদ্বন্দ্ব মাথাচাড়া দিচ্ছে বলে দলেরই একাংশের মত। যেমন, পাণ্ডবেশ্বর ব্লকে হায়দার মন্ডলকে সভাপতি করেছেন সৈয়দ আফরোজ। অন্যদিকে মনির মন্ডলকে সভাপতি করেছেন গোলাম সরওয়ার। দু’জনেরই দাবি তিনিই বৈধ সভাপতি। রানিগঞ্জে ব্লক সভাপতি হিসাবে হেনা খাতুনের নাম ঘোষণা করেছিলেন গোলাম সরওয়ার। অন্যদিকে ইন্তেকাব আলমকে সভাপতি করেন সৈয়দ আফরোজ। একই পরিস্থিতি বাকি ব্লকগুলিতেও।

সামনেই বিধানসভা ভোট। এমন পরিস্থিতির জন্য দলের সংখ্যালঘু সমর্থকদের মধ্যে বিভাজন তৈরি হচ্ছে বলে আশঙ্কা নেতৃত্বের একাংশের। বিজেপির কটাক্ষ, তৃণমূলের সব সংগঠনেই এমন পরিস্থিতি। অশান্তি লেগেই আছে। তার জেরে ভুগতে হয় সাধারণ মানুষকে। এর থেকে মুক্তি পেতেই বিজেপিকে বিধানসভা নির্বাচনে জয়ী করবেন রাজ্যবাসী।

https://durgapur24x7.com/tmc-sprinkle-ganga-jaal-on-the-road-after-bjp-s-parivartan-yatra-in-durgapur/

aamarvlog

শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। আমার ব্লগ- হাবি জাবি নয়। যোগাযোগ- ফোন ও হোয়াটসঅ্যাপ- 9434312482 ই-মেইল- [email protected]

Feedback is highly appreciated...

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: